Categories
হেলদ এন্ড ফিটনেস

খুশকি দূর করার ঘরোয়া উপায় ও টিপস

খুশকি সবাইরি একটি কমন সমস্যা।এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া দুঃসাধ্য যিনি খুশকি সমস্যায় একবারও ভোগেননি।এটি সাধারণত কোনো রোগের মধ্যে পড়েনা।চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় একে পাইটিরিয়াসিস ক্যাপিটি বা পাইটিরিয়াসিস সিচকা বলা হয়।খুশকির মাধমে সাধারণত ত্বকের মরা কোষগুলো ঝরে পড়ে,নতুন কোষ জন্ম নেয়।কিন্তু এই মরা কোষগুলো যখন ঠিকভাবে ঝরে পড়েনা তখন ত্বকে চর্মরোগের সৃষ্টি হয়।এতে ত্বকে চুলকানি,ব্রণ ও চুল ঝরে পড়াসহ নানা সমস্যার সৃষ্টি হয়।এই এক আর্টিকেলে আছে খুশকি দূর করার ঘরোয়া উপায় ও টিপস.

খুশকি সাধারণত দুইধরণের হয়। ছোট ও বড়ো খুশকি।ছোট খুশকি সাধারণত খুব একটা বোঝা যায়না,তবে চিরুনীতে আটার মতো লেগে থাকে।এটি সাধারণত নিয়মিত পরিচর্যাতে সেরে যায়।কিন্তু বড়ো খুশকি চোখে পড়ার মতো হয়।এটি চুলের উপর লেগে থাকে।এতে দ্রুত চিকিৎসা করা না হলে চুলের মারাত্বক রকমের ক্ষতি হয়ে থাকে।

যেসব কারণে খুশকি হতে পারে-


১. অতিরিক্ত ধুলাবালি থেকে শেম্পু না করলে অর্থ্যাৎ চুলে ময়লা জমা থাকলে খুশকি হয়।
২. বংশগত কারণেও অনেক সময় খুশকির সমস্যা হয়।তবে এতে চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া আবশ্যক।
৩. অনেক বেশি তৈলাক্ত ত্বক হলে খুশকির সমস্যায় পড়তে হয়।এতে নিয়মিত চুল পরিষ্কার রাখা জরুরি।
৪। অনেকদিন ধরে দুশ্চিন্তা ও মানসিক চাপে থাকলেও খুশকি হয়।
৫। ত্বকে ফাঙ্গাল ইনফেকশন হলে ও এলার্জিজনিত কারণে খুশকি দেখা দেয়।
৬. নিম্নমানের পণ্য,যেগুলি চুল ও মাথার ত্বকের জন্য ক্ষতিকর।সেসব পণ্য ব্যবহারে খুশকির উপদ্রব দেখা দেয়।

এবার আসুন জেনে নেই কি করলে খুশকি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়-
খুশকি দূর করতে আপনাকে খুব বেশি দামি কিছু নিয়ে ভাবতে হবেনা।হাতের কাছে থেকে জিনিসপত্রতে এর সমাধান রয়েছে।

১. একটা পিঁয়াজ থেকে পুরো রস বের করে ছেঁকে নিন।আবার এটি স্ক্যাল্প এ ভালোভাবে লাগিয়ে নিন।বিশ মিনিট পর চুল ভালো করে ধুঁয়ে নিন।এটি সপ্তাহে তিনবার ব্যাবহার করুন।খুশকি দূর করতে পিয়াজ খুবই কার্যকর ভূমিকা রাখে।এছাড়া এতে চুল শক্ত ও মজবুত হয়।

২. মেথি সারারাত ভিজিয়ে রেখে পরেরদিন এটি ব্লেন্ডারে বা পাটাই পিষে নিন।আবার এটি চুলের গোড়ায় লাগান।ত্রিশ মিনিট রেখে চুল ভালভাবে শেম্পু করে নিন।সপ্তাহে দুইবার লাগলে খুশকি খুব দ্রুত দূর হবে।

৩. চায়ের লিকার এর সাথে লেবুর রস মিশিয়ে পুরো মাথায় লাগিয়ে আধঘন্টা লাগিয়ে রাখুন।এটিও খুশকি দূর করবে।

৪. কিছু নিমপাতা পরিমান মতো পানি দিয়ে ভালো করে সিদ্ধ করে ছেঁকে নিন।ঠান্ডা হওয়ার পর মাথা ও পুরো চুলে ব্যাবহার করুন।সপ্তাহে দুইবার ব্যাবহার এ আপনার চুল যেমন ঘনকালো মজবুত হবে তেমনি খুশকিও অচিরেই দূর হবে।

৫. একটি ডিমের সাদা অংশের সাথে পরিমান মতো টকদই মিশিয়ে ভালোভাবে চুলে লাগিয়ে পনেরো মিনিট অপেক্ষা করে শেম্পু করুন।

৬. আমলকি পাউডার বা আমলকি।চেঁছে এর সাথে পানীয় মিশিয়ে চুলে লাগান।একঘন্টা পর ধুয়ে ফেলুন।

৭ .এখন প্রায় সবাই আ্যলোভেরা  গাছ লাগিয়ে থাকেন।একটি ফ্রেশ পাতা নিয়ে এর ভেতর থেকে জেলটুকু বের করে নিন অথবা আ্যলোভেরা জেল কিনে মাথায় লাগান।আ্যলোভেরার বহু প্রাকৃতিক গুন রয়েছে।

এইতো জেনে গেলেন খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক উপায়।এইবার যেকোনোটি ব্যাবহার করে খুশকি বিদায় জানান।

টিপস:

-রেগুলার চুল পরিষ্কার রাখুন

-বাহির থেকে এসে শেম্পু করুন

-চুল তেল চিটচিটে রাখবেননা

-আপনার রেগুলার ব্যাবহার করা পণ্য গুলো বুঝেশুনে নিন